জ্যোতিষশাস্ত্র প্রবেশিকা

কয়েকটি জন্মকুণ্ডলীর বিশ্লেষণ – অ্যাডল্ফ হিটলার : হিটলারের জন্ম অষ্ট্রিয়া ও জার্মানী সীমার কাছাকাছি একটি শহরে| বাবার নাম Alois এবং মা Klaaraa. হিটলারের আগে তাদের দুই সন্তান জন্মেছিল কিন্তু শৈশবেই তারা মারা যায়| ৬ বছর বয়সে হিটলার বিদ্যালয়ে ভর্তি হন| Edmund নামে তার ছোট ভাই ৬ বছর বয়সেই মারা যায় এর পর তার এক বোন Paula জন্মগ্রহণ করে| ১৯০৩ সালের ৩রা জানুয়ারী হিটলারের পিতৃবিয়োগ হয়| শিল্পী হবার বাসনা নিয়ে হিটলার বিদ্যালয় ত্যাগ করেন তবে বিদ্যালয়ে তার ফলও খুব ভাল হচ্ছিল না| ১৮ বছর বয়সের হিটলারের কোন রোজগার ছিল না| সেই সময় তিনি রাজনীতি ও ইতিহাস বিষয়ে কৌতূহলী হয়ে পড়েন| শিল্পী হবার বাসনায় Vienna Academy of Fine Arts -এ ভর্তি হতে গিয়ে তিনি ব্যর্থ মনোরথ হন| ১৯০৭ সালের ২১শে ডিসেম্বর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে হিটলারের মা মারা যান| এর পর হিটলার প্রায় গৃহহীন অবস্থায় ঘুরে বেড়ান এবং দান ছত্রের দয়ায় বেঁচে থাকেন| মাঝে মাঝে তিনি বিজ্ঞাপনের জন্য ছবি আঁকতেন কিন্তু সেখান থেকে তার আয় যৎসামান্য| …
দীপক সেনগুপ্ত

This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

2 Responses to জ্যোতিষশাস্ত্র প্রবেশিকা

  1. sashanka choudhury says:

    besh bhalo lekha hochchhe|

  2. Adhir Moulik says:

    এই জ্যোতিষশাস্ত্র প্রবেশিকা সিরিজটা প্রথম থেকে মনোযোগ দিয়ে পড়লে একটা মিথ্যেতে শুরু করে তারপর গোঁজামিল দিতে কত সাত কেন, সতেরো কাহন ফাঁদতে হয় তার একটা মজার ইতিহাস পাওয়া যাবে। এই সংক্ষিপ্ত বিবরণটিতেও সাতাশটি প্রাণঘাতী নিয়ম আছে, তা সত্ত্বেও নিপাতনের প্রয়োজন আছে, উদাহরণ: চিত্র ১৩(৮) দেখুন। অবশ্য এ নিপাতনগুলো খুবই দরকারী, নতুন নিয়ম তৈরী করে সংস্কৃতে শ্লোক ঝাড়া যায়। খদ্দেরের কাছে মুখ রক্ষে হয়, জ্যোতিষীর পসার বাড়ে, চার বছরের ডিগ্রি কোর্স দেওযা যায়। অনেকটা প্রতিমা গড়ার মতো। বাঁশের মাচায় হোলো না, খড়ের কাঠামো, তাতেও লোকে মুখ ব্যাঁকায়, চড়াও মাটি, লোকে বলে এম্যা গো কী কালকুষ্টি, লাগাও রঙ, … করতে করতে গর্জন তেল…। কর্মফল, জন্মান্তরবাদের বিষয়টাও যদি এ প্রসঙ্গে মনে আসে তবে কি খুব অন্যায় হবে?

Leave a Reply

Your email address will not be published.

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>