‘অবাক জলপান’ – একটি আধুনিক পাঠ

‘অবাক জলপান’ – একটি আধুনিক পাঠ - সুকুমার রায় এক বিস্ময়কর প্রতিভা। আপাতদৃষ্টিতে দেখলে তিনি এক শিশু – সাহিত্যিক। বাংলার শিশু ও কিশোর সাহিত্যকে তিনি অসামান্য ভাবে সমৃদ্ধ করেছেন। তাঁর সৃষ্ট চরিত্রগুলি আমাদের মনে কোণে একেবারে খোদাই হয়ে আছে। …
ভাস্কর বসু

This entry was posted in literature, Opinion and Discussion. Bookmark the permalink.

22 Responses to ‘অবাক জলপান’ – একটি আধুনিক পাঠ

  1. Udayan Banerjee says:

    Engineer’s view of অবাক জলপান.

    হয়ত বাংলাদেশের management course এ communication পড়াতে গেলে,অবাক জলপান analysis একটি assignment হতে পারে!

    • Bhaskar Bose says:

      সেটাকে হাইলাইট করাই উদ্দেশ্য ছিল। ধন্যবাদ শ্রম সার্থক করার জন্য!!

  2. Ishani says:

    বা: , অন্যরকম | এভাবে ভাবিনি কখনো |

    • Bhaskar Bose says:

      খুব আশঙ্কা নিয়ে লিখেছিলাম, মোটামুটি দাঁড়িয়ে গেছে দেখে আহ্লাদিত।

  3. Barnali Bose Guha says:

    পড়ে ফেল্লাম ভাস্কর দা – দারুণ ব্যাখ্যা করেছেন তো – এভাবে কখনও ” অবাক জলপান” পড়ার কথা মনে আসেনি :-) বহুবার ই তো পড়েছি :-)

    তবে ইংরেজী তে অনুবাদ এর প্রস্তাবের ক্ষেত্রে শুধু এটুকুই বলতে পারি – ওটা হবে না – যত ভালো ভাবে অনুবাদ ই হোক না ক্যানো গল্পের মূল রস টা যে শব্দগুলোকে ঘিরে অনুবাদে তা ফিকে হয়ে যাবে – জল পাই থেকে জলপাই এ just হবেনা :-)

    • Bhaskar Bose says:

      ঠিক!! সেজন্য মূল ভাবটিকে নিতে হবে বর্ণালী। তবে আমাদের তো সুকুমার ধনী করেই দিয়েছেন।

  4. Sujata Bera says:

    আজ আবার ঋদ্ধ হলাম।শৈশব এ ‘অবাক জলপান’ এর সঙ্গে পরিচিত হয়েছিলাম অন্যভাবে।আজ আপনার মনোজ্ঞ বিশ্লেষণ এ সাহিত্য ভাবনার বলয়ে এক নতুন বলয় উন্মোচিত হল।খুব ভালো লাগলো।তবে আমার ক্ষুদ্র মস্তিষ্কের ধারণা ‘অবাক জলপান’ এর অনুবাদ এর ক্ষেত্রে অনুবাদক এর সাবলীলতা না থাকলে তা অনেকটাই ফিকে হয়ে যাবে। পাঠককুল সেভাবে প্রাণিত হবেন না।

  5. Sumit Roy says:

    সুকুমারের লেখায় শব্দচাতুর্যের ফেনাটা সরিয়ে ভাস্কর সন্ধান দিলেন নীচে লুকোনো আর এক ভিয়েনের, ভালো লাগলো। সাধু!

  6. অরিন্দম বোস says:

    “অবাক জলপান” গল্পটিকে এতদিন শিশু সাহিত্যের এক অনবদ্য সৃষ্টি হিসেবে পড়েছি …। কিন্তু সেই গল্পটির ও যে অন্য আঙ্গিকে, এমন অসাধারণ বিশ্লেষনাত্মক ব্যাখ্যা হতে পারে তা কখুনো ভাবতে পারিনি । লেখক শ্রী ভাস্কর বসুকে আমার আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই এমন একটি লেখা উপহার দেবার জন্য ।।

  7. সৌম্যকান্তি জানা says:

    দারুণ! কতবার পড়েছি। অভিনয়ও করেছি। কিন্তু এভাবে তো ভেবে দেখিনি কোনওদিন। খুব খুব সুন্দর লিখেছেন দাদা।

    • Bhaskar Bose says:

      অনেক ধন্যবাদ, সৌম্য!! এই নতুন দিকটা যে তোমাদের সামনে তুলে ধরতে পেরেছি তাতে নিজেকে ধন্য মনে করছি!

  8. Pallab Kumar Chatterjee says:

    একটা জনপ্রিয় বিষয় আর একটা অভিনব চিন্তাধারা। এই জিনিষটা যেন ভাস্করের কাছে আমাদের অবধারিত প্রত্যাশা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সামান্য জলপান যে কত অবাক করার বিষয় হতে পারে, তাকে সম্পূর্ণ অন্যদিক থেকে দেখে বেশ আনন্দ পাওয়া গেল।

    • Bhaskar Bose says:

      পল্লব, এরকম কথা শুনলে ভালো তো লাগেই। কিন্তু ভয় ও যে করে না তা নয়। আশা করছি আপনাদের শুভেচ্ছাতে চালিয়ে যেতে পারবো।

  9. Somen Dey says:

    একেবারে জলবৎতরলং । তাই এক চুমুকেই খাওয়া যায় ।

  10. সুমনা মিত্র-গুপ্ত says:

    অবাক জলপান নিয়ে লেখকের বিশ্লেষণ নতুন লাগলো। সুকুমার রায় অবাক জলপান লিখেছিলেন কিশোরদের আনন্দ দেবার জন্য। যেহেতু বাস্তবে অবাক জলপান ঘটে যাবার সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে, তাহলে একে Communication collapse এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ হিসেবে ধরে নেওয়া যুক্তিযুক্ত হবে কি? তার চেয়ে বরং এর রস-আস্বাদনেই মজা। এই ব্যাপারে আমি Wordsworth এর সাথে একমত “Our meddling intellect/mis-shapes the beauteous forms of things/We murder to dissect”.

    • Bhaskar Bose says:

      মতামতের জন্য ধন্যবাদ!!

      “যেহেতু বাস্তবে অবাক জলপান ঘটে যাবার সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে, তাহলে একে Communication collapse এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ হিসেবে ধরে নেওয়া যুক্তিযুক্ত হবে কি?”

      আসলে শিল্পের সঙ্গে বাস্তবের একটু তফাৎ থাকেই। ‘অবাক জলপান’ বাস্তবে না ঘটলেও প্রায় অনুরূপ Communication collapse এর অনেক উদাহরণ দেখা যেতেই পারে। সুতরাং সেই হিসেবে এটিকে দেখা যেতে পারে এবং শিক্ষাক্ষেত্রে মজার মাধ্যমে আপাত নীরস শিক্ষাদান অপেক্ষাকৃত আনন্দদায়ক হতে পারে। সেটাই লেখার বক্তব্য।

      আর কবির ভাষ্য “We murder to dissect” অনেক সময়ই মেনে নিতে পারি না। তা হলে আর সাহিত্য আলোচনা করার কি দরকার? “তুলনামূলক সাহিত্য” ব্যাপারটি ও তো খুব তত্ত্বগত আলোচনা।

      স্বয়ং রবিঠাকুর ও “চণ্ডিদাস ও বিদ্যাপতি” প্রবন্ধে দুজনের তুলনামূলক আলোচলা করে লিখেছিলেন,

      ” বিদ্যাপতি সুখের কবি,চণ্ডিদাস দুঃখের কবি। বিদ্যাপতি বিরহে কাতর হইয়া পড়েন, চণ্ডিদাসের মিলনেও সুখ নাই। বিদ্যাপতি জগতের মধ্যে প্রেমকে সার বলিয়া জানিয়াছেন, চণ্ডিদাস প্রেমকেই জগৎ বলিয়া জানিয়াছেন। বিদ্যাপতি ভোগ করিবার কবি, চণ্ডিদাস সহ্য করিবার কবি! চণ্ডিদাস সুখের মধ্যে দুঃখ ও দুঃখের মধ্যে সুখ দেখিতে পাইয়াছেন। তাঁহার সুখের মধ্যেও ভয় এবং দুঃখের প্রতিও অনুরাগ।”

      কি প্রয়োজন ছিল এভাবে দুই কবিকে “Wordsworth” এর মতে “murder to dissect” করার?

  11. সুমনা মিত্র-গুপ্ত says:

    সাহিত্যের উদ্দেশ্য যদি সৌন্দর্য সৃষ্টি হয়, তাহলে তার আলোচনা ও বিশ্লেষণের উদ্দেশ্যও তাই হওয়া উচিত বলে আমার মনে হয়। তুলনা, সমালোচনা, বিশ্লেষণ, ব্যতিক্রমী দৃষ্টিভঙ্গী ও প্রশ্ন – এই সবই সৃষ্টিশীল মনের কাজ, কিন্তু এগুলি সাহিত্যের নিহিত – প্রচ্ছন্ন বা প্রকট, মূলসুরটি থেকে সরে যখন আসে তখন সাময়িক উচ্ছ্বাসে পরিণত হয়।
    প্রভাতকুমার ‘বলাকা’র বিশ্লেষণে Nietzche-র প্রসঙ্গ এনেছেন, একে নিশ্চয় ব্যতিক্রমী দৃষ্টিভঙ্গী বলা যায় এবং তা বলাকার গতিময় সুরটিকে পাঠকের চোখের সামনে তুলে ধরতে সাহায্য করে, তাই সেটা সার্থক ও চিরন্তন। কিন্তু যদি কেউ ‘সোনার তরী’র বিশ্নেষণে কবিগুরুর কৃষিকাজের প্রসঙ্গ আনেন, তাহলে সেখানে ঘোর রসভঙ্গ হয়।
    কবিগুরুর কথাতেই লিখি “মনে করুন আমি যদি প্রমাণ করিয়া দিই যে, কুমারসম্ভব সাংখ্য মতের একটি সুচতুর ব্যাখ্যা, অতএব তাহা একটি শ্রেষ্ঠ কাব্য, তবে তাহা বর্তমান কালের স্বদেশবৎসল দার্শনিকবর্গের যতই মুখরোচক হউক, সাময়িক ভাব ও মতের পরিবর্তনকালে তাহার কোনো মূল্য থাকিবে না। কিন্তু তাহার কাব্যাংশ আমার যে কত ভালো লাগে, আমি যদি ভালো করিয়া ব্যক্ত করিতে পারি………… তবে সে কথা কোনোকালে অমূলক হইয়া যাইবে না” (র. র. ১৭, পৃ ২৬৮)

    আমার মন্তব্য যদি আপনার রূঢ় মনে হয়েছে, তাহলে আমি দুঃখপ্রকাশ করছি। আপনার লেখনীর জয় হোক।

    • Bhaskar Bose says:

      আসলে “অবাক জলপান” এর যে অদ্ভুত, অনবদ্য, রসসৃষ্টি তা সম্ভব হয়েছিল শুধুমাত্র সৃজনশীল লেখনীর জোরেই নয়, এর মধ্যে অন্তরনিহিত ছিল সুকুমারের বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারা। সেটার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করাই লেখাটির একটি উদ্দেশ্য ছিল।

      সেটা হয়ত লেখাতে ঠিকমতো ফুটে ওঠেনি।

Leave a Reply to সৌম্যকান্তি জানা Cancel reply

Your email address will not be published.

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>