বঙ্গমেলার রঙ্গকথা

বঙ্গমেলার রঙ্গকথা – ৮ থেকে ১০ই জুলাই উত্তর আমেরিকার অ্যালাবামা রাজ্যের বার্মিংহ্যাম শহরে হয়ে গেল এ বছরের বঙ্গমেলা। অষ্টাদশতম বঙ্গমেলাটির মূল আয়োজক ছিলেন ‘মিড আমেরিকা বেঙ্গলি অ্যাসোসিয়েশন’, সঙ্গে ‘বেঙ্গলি অ্যাসোসিয়েশন অফ গ্রেটার বার্মিংহ্যাম।’…
কেয়া মুখোপাধ্যায়

This entry was posted in Reflections. Bookmark the permalink.

20 Responses to বঙ্গমেলার রঙ্গকথা

  1. খুব সুন্দর পড়লাম বঙ্গমেলার গল্প। তোমার ঝরণা কলমের গতি অনবদ্য। আর নিজে অংশ নিয়ে এই মহাযজ্ঞের অংশীদার না হলে এমন সুন্দর করে এল্খা যায়না, সেটাও বুঝলাম।

  2. Ishani says:

    ইস, পড়েই যেতে ইচ্ছে করছিল | খুব সুন্দর আর বিশদ | আরও ভালো লাগল প্রস্তাবগুলো | বঙ্গমেলার শ্রীবৃদ্ধি হোক উত্তরোত্তর |

    • Keya Mukhopadhyay says:

      অজস্র ধন্যবাদ, ঈশানীদি! তবে একসঙ্গে এত আয়োজনের বদলে দেশে যখন যেমন ইচ্ছে শোনা যায়, দেখা যায়, সেটা আমরা মিস করি খুব!

  3. এই যে প্রবাসে দৈবের বশে এই নিজের সুতোটাকে ধরে রাখার চেষ্টা। এটার সার্থকতা আছেই আছে!

  4. Somen Dey says:

    খুব ভালো লাগল লেখাটি। বিশেষ করে ভালো লাগলো হেমেন্দ্র কুমার রায়ের গল্প নিয়ে শ্রুতি নাটক করেছে ওখানকার ছেলে মেয়েরা। তিনি তো নিজভূমেই প্রায় বিস্মৃত ।এটা বলাই ভালো – বন্যেরা বনে সুন্দর বাঙালি প্রবাসে ।

    • Keya Mukhopadhyay says:

      হেমেন্দ্রকুমার রায়কে নিয়ে কাজ বলেই আমার খুব ভাল লেগেছে। আর ভারি সুন্দর উপস্থাপনা ছিল দ্বিতীয় প্রজন্মের অভিনয়ের।
      অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

  5. Sauryamoy Mitra says:

    আপনার লেখার ধরন অত্যন্ত মনগ্রাহী | সুখপাঠ্য | ভালো লাগল

  6. Sumit Roy says:

    “কেউ কথা রাখেনি” — এক কেয়া ছাড়া। সাবাস!

  7. শিবাংশু says:

    বিশদ, বিশ্বস্ত প্রতিবেদন। ভালো লাগলো। ‘বঙ্গ’ নিয়ে সুমিতদার একটা বেজায় মজার, তির্যক লেখা পড়েছিলুম কিছুদিন আগে।

    আমরা এনারাই নই, দেশী প্রবাসী। ঠিক এইধরনের আয়োজনের সঙ্গে শৈশব থেকে পরিচিত। বাঙালির বিলাসবহুল, সুশোভিত সংস্কৃতিচর্চার মোহটি বেশ কাছ থেকে জানি। “নিকটে দেখিব তোমারে” ব্যাপারটার সঙ্গে অভ্যস্ত। :-)

    • Keya Mukhopadhyay says:

      শিবাংশুদা- ওই লেখাটির মাধ্যমেই সুমিতদার সোনার কলমের (কী বোর্ড বলাই ভাল এখন) সঙ্গে আমার পরিচয়। বঙ্গসম্মেলন নিয়ে ওইরকম সরস লেখা আর পড়িনি!
      প্রবাসে থাকলে সংস্কৃতিচর্চার টান এবং মোহ অন্যরকম হয়। এ নিয়ে আপনার লেখা পড়বার ইচ্ছে রইল। :)

  8. Bimal Konar says:

    হুঁ, বেশ গুছিয়ে পড়লাম। এইরকম পুঙ্খানুপুঙ্খ বর্ণনা পড়তে গেলে যেমন মনঃসংযোগ দরকার তেমনই সময় ও দরকার। তাই post টা বারংবার ঘুরেফিরে এলেও শুধু সময়ে’র অপেক্ষায় ছিলাম। বঙ্গমেলার একটি নিখুঁত চিত্র পেলাম। ধন্যবাদ।

  9. শুভেন্দু প্রকাশ চক্রবর্তী says:

    বেশ কিছু অনুষ্ঠানের কথা জানলাম। এগুলোর ভিডিও দেখতে পেলে খুবই আনন্দ হতো। যেমন নটিনীর নৃত্যানুষ্ঠান, ইত্যাদির।

    • Anonymous says:

      “ওপারটা কী রকম?” — উত্তরে প্ল্যান্‌চেটের ভূত বলেছিলেন, “ইয়ার্কি ছাড়ো। আমি মরে যা জেনেছি তা তোমরা না মরেই জানতে চাও?!” :-)

      • শুভেন্দু প্রকাশ চক্রবর্তী says:

        গল্পটা কে লিখেছিলেন, জীবন্ত না মৃত মানুষ?
        আশ্চর্য লাগে, এখনও এমন জীবন্ত (?) মানুষ আছেন যাঁরা এই সবে বিশ্বাস রাখেন আর বলে আনন্দ পান।তবে নিশ্চয় বোঝেন আর তাই নাম জানাতে লজ্জা, নাকি ভয় পান।

Leave a Reply to শুভেন্দু প্রকাশ চক্রবর্তী Cancel reply

Your email address will not be published.

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>