পোনুর চিঠি – ফ্লোরেন্সে পোনু

ফ্লোরেন্সে পোনু
দাদা: অনেক তো হোলো আর কেন? আমার মাথায় ধূসর পদার্থের একটু খামতি আছে, আর একটু গতরখেকো বলে সারা জীবন “কম্মের ঢেঁকি”, “বুদ্ধির ঢেঁকি”– এইসব নামে ডেকে এলেন। তারপর এ বছর ফলন ভালো হয়ে যখন বাড়তি ধান ভানার দরকার পড়লো, তখন চাঁদা তুলে স্বর্গে পাঠালেন। আমিও মশাই বুনো ওলের মাপসই বাঘা তেঁতুল, নাহলে এতকাল আপনাদের চরিয়ে খেলাম কী করে। এইবার শুনুন গীত — সে গীত শিবেরও হতে পারে, বাঁদরেরও হতে পারে। কেঁচো খুঁড়তে যেতে কে মাথার দিব্যি দিয়েছিলো আপনাকে?…

This entry was posted in Travel_stories. Bookmark the permalink.

6 Responses to পোনুর চিঠি – ফ্লোরেন্সে পোনু

  1. Sukomal Talukder says:

    Welcome, Pono-dada! Waiting for the next one! And thanks to the Editor!

  2. ki sarbonash holo seta janar jonno opekkha korchi…
    majhe-modhey lekhataye du-ekta chobi-thobi chitiye diley amrao ektu chakkhush dekhar kichuta anondo pai,Sir.

    • Webmaster says:

      ছবির ব্যাপারে আপনার অনুরোধ পোনুকে জানিয়েছি। সে ছোঁড়া এখন শুনলে হয়!

  3. ponu says:

    দীপকবাবু: “রাই ধৈর্যং, রহু ধৈর্যং”। এবারে ছবি দিলে শুধু আমার চন্দ্রবদন দেখতে পেতেন, পরের কিস্তিতে আরো অনেক বেশী পাবেন, একেবারে “বেণীর সঙ্গে মাথা”! — বশংবদ পোনু

  4. সুধীর says:

    দারুন লাগছে। আনেক দিন পর আবার পাচ্ছি। দাদা চালিয়ে যান।

  5. Sukomal Talukder says:

    Do I know this “Ponu”? Not sure!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>