একটি কিশোরের আকাশবাণী

একটি কিশোরের আকাশবাণী- আমি এখন যে দেশে থাকি সে দেশ সত্বর ব্যাপকভাবে পিশাচ-অধ্যুষিত হয়ে যেতে পারে, সম্প্রতি এমন আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। বলা হচ্ছে প্রাবল্যে তা হবে কল্পনাতীত, মানে মানুষজাতি লোপ পেয়ে যেতে পারে, এরকম সন্দেহ করা হচ্ছে। …
সুমিত রায়

This entry was posted in Reflections. Bookmark the permalink.

9 Responses to একটি কিশোরের আকাশবাণী

  1. Alok Chakrabarti says:

    Very nice, it brings back a lot of boyhood memories.

  2. D Sengupta says:

    সুমিতদার লেখাটি পড়ে খুব ভাল লাগল। ১৯৫৭ সালের বেতার জগৎ পত্রিকাটির প্রতিলিপি দেখে পুরানো দিনের অনেক কথা মনে পড়ে গেল। জয়া বসু ( পরে বিশ্বাস ), সনৎ কুমার সিংহ, বাণী কোনার ইত্যাদি নাম গুলির সঙ্গে অনেক স্মৃতি জড়িয়ে আছে। সুবিনয় রায় অবশ্য বহু বছর পরেও রবীন্দ্রসঙ্গীত পরিবেশন করেছেন। সুমিতদাকে জানাই আমার কাছে বর্তমানে একটিও বেতার জগৎ পত্রিকা নেই। সত্তরের দশকের গোড়ায় নতুন টেপ রেকর্ডার কিনে রেডিওর অনেক গান ধরে রাখব বলে বেতার জগৎ পত্রিকার নিয়মিত গ্রাহক ছিলাম। স্তূপীকৃত পত্রিকা অনেকে হাতে করে নিয়ে গিয়েছে, বাকিটা বিক্রি হয়েছে পুরানো কাগজের সঙ্গে। ওগুলোর মূল্য তখন বুঝতে পারিনি।
    ইণ্ডিয়ান ব্রডকাস্টিং কোম্পানির কলকাতা বেতার প্রতিষ্ঠানের মুখপত্র ‘বেতার জগৎ’ প্রথম প্রকাশিত হয় ১৯২৯ সালের ২৭শে সেপ্টেম্বর, শুক্রবার। সে সময় এটির মুল্য ছিল এক আনা, পৃষ্ঠা সংখ্যা চব্বিশ। আর্থিক দুরবস্থার জন্য অনেকের ইচ্ছা সত্বেও কর্তৃপক্ষ প্রথমে পত্রিকা প্রকাশ করতে রাজি হন নি। পরে স্টেপলটন সাহেব প্রতি সংখ্যা অন্ততঃ দু’শ কপি বিক্রি হবার শর্তে পত্রিকা প্রকাশে রাজি হন। প্রকাশনা অক্ষুণ্ণ রাখতে বীরেন্দ্রকৃষ্ণ ভদ্র প্রমুখ উদ্যোগী ব্যক্তিরা নিজেরা রাস্তায় নেমে পত্রিকা বিক্রি করেছেন; দু’শ কপি বিক্রি না হ′লে বাকিটা নিজেরা কিনে নিয়েছেন। পরে অবশ্য পত্রিকার চাহিদা বেড়ে যায়। বেতার সূচী ছাড়াও অনেক মূল্যবান প্রবন্ধ এই পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। ‘বেতার জগৎ’ নিয়ে গবেষণা করেছেন এমন ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, ‘বেতার জগৎ’ এখন দুস্প্রাপ্য। অনেক লাইব্রেরী ঘুরেও ধারাবাহিক ভাবে পত্রিকাটির বহু সংখ্যা তারা সংগ্রহ করতে পারেন নি। প্রশ্ন একটাই। আকাশবাণী ভবনে পত্রিকাটি সংরক্ষিত হয় নি কেন ? অবশ্য ইতিহাস ধরে রাখতে আমাদের অনীহা ও উদাসিনতা সর্বজনবিদিত। অনেক পুরানো পত্রিকা এখান থেকে সম্পূর্ণ হারিয়ে গেলেও হয় ত বৃটেনের লাইব্রেরীতে সেগুলি সযত্নে রক্ষিত রয়েছে।

    দীপক সেনগুপ্ত।

  3. Sumit Roy says:

    Dipak, thanks and :-( (

  4. Nina Gangulee says:

    Loved it!!

  5. Subin Das says:

    সুমিত বাবুর লেখাটি পড়তে পড়তে ফিরে গেছিলাম আমাদের শৈশব কালে । কত প্রায় ভুলে যাওয়া স্মৃতি ঝলকে ঝলকে ফিরে আসছিল মনের আয়নায় । দুর্গাপুজোর মহালয়ার দিন সে পূজোর গানগুলি অনুরোধের আসরে প্রথমবারের জন্য বাজান হত । এই অনুষ্ঠানটি কিছুতেই মিস্ করতাম না । শুক্রবারের রাত আটটার বেতার নাটক সব সময়ে শুনতে পেতামনা, স্কুলের পড়াশুনার চাপে । পূজো বাড়ীতে বিরাট বোদ্ধার মতন নতুন গাওয়া গানগুলি নিয়ে আলোচনা করতাম, বিশেষ করে পাড়ার উঠতি সুন্দরীদের সাথে । সে যুগে প্রায় সব বাড়ীর মেয়েরা গান এবং নাঁচ শিখত নাম করা দক্ষিণ কোলকাতার প্রতিষ্ঠান গুলিতে । ধন্যবাদ জানাই সুমিত বাবুকে এই সুখের স্মৃতি রোমন্থনর জন্য।

  6. Sikta Das says:

    অনেক বড় লেখা!! বড় ভালো লেখা!!শুধু শুনেছি রেডিও, ভেতরের গল্পগুলো জানার সৌভাগ্য হয় নি।তাই সেই আভাসগুলো বড় মুগ্ধ করল। একেবারে ছোটোবেলায় বাবা মায়ের সঙ্গেই রেডিও শোনার অভ্যেস তৈরী হয়েছিল। প্রচুর গান শুনতেন মা। মহিলাদের আসর, পল্লীগীতির আসর, বুধবারের যাত্রা, রবিবারের দুপুরগুলোয় বিবিধভারতির নানা অনুষ্ঠান, শুক্রবার সন্ধেবেলার নাটক, রাত সাড়ে নটায় আধঘন্টার রবীন্দ্রসঙ্গীতের আসর,আধুনিক গানের আসর, সকাল ৭-৪০এর তিনটে রবীন্দ্রসঙ্গীত…এমন কত কিছু মায়ের প্রিয় অনুষ্ঠান ছিল।এমনকি মাঝেমাঝে কৃষিকথার আসরও শুনতেন। বাবা শুনতেন খবর। বাংলা ইংরেজী। আর ক্রিকেটের ধারাবিবরণী।কি মাদকতাময় কন্ঠস্বর সব!!! মোহিত হয়য়ে যেতাম সেই ছোটোবেলাতেই। গল্পদাদুর আসর আমার প্রিয় অনুষ্ঠান ছিল। তারপরেই হত সঙ্গীতশিক্ষার আসর।বসে বসে শুনতাম। গলা মেলাতাম । একটা ক্রীম রঙের রেডিও আর তার ধারগুলোতে কচিকলাপাতা সবুজ বর্ডার (খুব ছোটোবালেয় মনে হতো লোকজন সব ওর মধ্যেই এসে গান গেয়ে যায় । ) প্রতিদিনের অনেকখানি জুড়ে থাকতো, যার ছোঁয়া আমরাও পেয়েছিলাম। এখনও শুনি রেডিও। তবে কলকাতা ক,খ, গ, বিবিধভারতী সে সব কোথায়!!
    আমার ছোটোবেলা আর তার সঙ্গে জড়িয়ে থাকা মানুষগুলোকেও আপনি ফিরিয়ে দিলেন আপনার লেখার মধ্য দিয়ে…অনেক ধন্যবাদ। শুভেচ্ছা…

  7. Kakali Roy says:

    খুব ভাল লাগলো , যদিও আমরা আরও একটু পরে রেডিওর সান্নিধ্য পেয়েছি …তখন ট্রানজিস্টর রেডিও । সেই মায়াঝরা দিনগুলো চোখের সামনে ভেসে উঠলো । প্রসঙ্গত আপনি বিকাশ রায়ের ( যাঁর অভিনয়ে মুগ্ধ ছিলাম) ছেলে সেটাও জানলাম ।

  8. Sumit Roy says:

    Thanks folks!

  9. anti theft backpack pacsafe backpack xjjm

    okn68219

Leave a Reply

Your email address will not be published.

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>