মধ্য মধ্য-প্রদেশের পথে প্রান্তরে

মধ্য মধ্য-প্রদেশের পথে প্রান্তরে -কলকাতার হাওড়া স্টেশন থেকে চম্বল এক্সপ্রেসে যাত্রা শুরু। গন্তব্য ঝাঁসি। সন্ধ্যায় ট্রেন ছাড়ল। সাড়ে চার ঘণ্টা লেটে পৌঁছল ঝাঁসি স্টেশনে। সেখান থেকে সড়ক পথে ওরছা শহরে যাওয়া। সে রাতে বিশ্রাম নিয়ে পরের দিন সকালে বেরিয়ে পড়লাম ঐতিহাসিক স্থানগুলোর দর্শনে। এই রাজ্যটির পথেঘাটে ছড়িয়ে আছে আমাদের সেকালের ইতিহাসের নিদর্শন। …
সুবীণ দাশ

Posted in Travel_Images, Travel_stories | Leave a comment

বাহুলাড়ার বাতিঘর

বাহুলাড়ার বাতিঘর -হাজার বছর আগে বিখ্যাত তামিল সম্রাট রাজেন্দ্র চোল লিখতেন তিরুমলয় লিপিতে। সেখানে তিনি দুটো জায়গার নাম উল্লেখ করেছিলেন। ‘উত্তীরলাঢ়ম’ এবং ‘তক্কণলাঢ়ম’। বাংলায় সেগুলো দাঁড়ায় উত্তররাঢ় আর দক্ষিণরাঢ়। যদিও রাঢ়দেশ তারও হাজার বছর আগে থেকে লোকে চেনে। খ্রিস্টের আগে লেখা জৈনদের পুঁথিতে এই রাঢ়দেশকে লাঢ়দেশ লেখা হয়েছে। বস্তুত বাংলার বাইরে এবং বাংলার ভূমির সন্তানদের কাছে এই প্রান্তটি লাঢ় বা লাঢ়া …
শিবাংশু দে

Posted in Travel_Images, Travel_stories | 1 Comment

মানসী, মর্ম্মবাণী, মানসী ও মর্ম্মবাণী মানসী

মানসী, মর্ম্মবাণী, মানসী ও মর্ম্মবাণী মানসী - কলকাতায় সেকালের নাম করা ফটোগ্রাফির দোকান ছিল ৪নং চৌরঙ্গী লেনস্থ হপসিং কোম্পানি। এরই অফিসে সাহিত্য-আড্ডা জমত, উদ্যোক্তা ছিলেন বিশিষ্ট ছোট গল্প লেখক ও ঔপন্যাসিক ফকিরচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়। অনেক উৎসাহী তরুণ সাহিত্যসেবী এই আড্ডায় এসে যোগ দিত। এখান থেকেই শুরু হয় একটি নতুন পত্রিকা প্রকাশের পরিকল্পনা। …
দীপক সেনগুপ্ত

Posted in Uncategorized | Leave a comment

সামান্য কেরালা

সামান্য কেরালা -মাথায় ঘুরছিল কেরলে ক’দিন। কিন্তু এ ব্যাপারে যাঁকেই জিজ্ঞেস করি, উত্তর পাই– বড্ড খরচ হে, আর ঝামেলার ট্যুরও বটে। সম্ভব হলে ট্যুর অপারেটর ধরে ঘুরে এসো। ঠিক করেছিলাম প্রথমে কোচি, শেষে কোভালাম আর মাঝে আর যা কিছু– এই ধরেই এগোতে হবে। এবং কোনও ট্যুর অপারেটরের সঙ্গে নয়– নিজেরাই যাব। ফলে এক সকালে কলকাতা টু কোচি এক জোড়া প্লেনের টিকিট কেটে ফেললাম। …
সুবীর বোস

Posted in Travel_Images, Travel_stories | 1 Comment

অপ্রাকৃত এবং অপ্রাকৃত ২ – আলোচনা

অপ্রাকৃত এবং অপ্রাকৃত ২ – আলোচনা – ভাদ্র মাসের পচা গরম উপলক্ষে আপনারা যখন আইঢাই করছেন, বা পুজোর আর কদ্দিন বাকি সেই হিসেব করছেন, তখন আমার হঠাত ইচ্ছে হল বর্ষা আর লোডশেডিং-এর সঙ্গে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত বিষয়ের দুটো বই নিয়ে কথা বলার। আজ্ঞে হ্যাঁ, আমি আজ যেদুটো বই নিয়ে আপনাদের কাছে ভ্যাজর ভ্যাজর করব সেদুটোই এমন বিষয় নিয়ে, যাদের চলতি কথায় আমরা ‘ভূতের গল্প’ বলে থাকি।…
ঋজু গাঙ্গুলী

Posted in Opinion and Discussion | Leave a comment

আপিস কথা (৮)

আপিস কথা (৮) - আপিসের সব কিছুই কি খারাপ? নকুড় মনে মনে ভাবছিল। এমনিতে তোসারাক্ষণ কেউ না কেউ কারও না কারও পিছনেলেগেই থাকে। কেউ মজা করে, কেউ কাঠি করে নিজে বাড়বে বলে। কিন্তু তার বাইরে কি কিছুই নেই? আপিসই কি সেই প্রধান কারণ যেখান থেকে মানুষের মনে প্রথম বৈরাগ্যের কথা জাগে? কিন্তু সে চিন্তা বড়ই ক্ষণস্থায়ী। বৈরাগ্য কেসটা বড়ই অনিশ্চিত …
মৃগাঙ্ক মজুমদার

Posted in Reflections | Leave a comment

ঢালাই শিল্পের ইতিহাস

ঢালাই শিল্পের ইতিহাস -মানব সভ্যতার শুরু এবং অগ্রগতি হয়েছে প্রযুক্তির (ইঞ্জিনিয়ারিং ও টেকনোলজির – Engineering and Technology) হাত ধরে। মানব জাতি তার বিবর্তনের সঙ্গে তাল রেখে, তার বুদ্ধিমত্তা ও উদ্ভাবনী শক্তি প্রয়োগ করে, ফলমূল সংগ্রহ ও পশুপাখী শিকার করার উপযোগী হাতিয়ার ও অস্ত্র তৈরি করে। এই ভাবেই জন্ম হয় প্রযুক্তি বিদ্যার যা তার কাজকে সহজ…
বিমল বসাক

Posted in Technology | 3 Comments

‘অ’-বাবুর মন খারাপ

‘অ’-বাবুর মন খারাপ – ‘অ’- বাবুকে চেনেন না? তা, না চিনলেও ক্ষতি নেই কিছু, ‘অ’-বাবু তেমন কেউকেটা নন মোটেও। তিনি আদতে একজন মাঝবয়সী বাঙালী পাঠক। বাংলা কথাসাহিত্যের সঙ্গে তাঁর যোগ, প্রাথমিকভাবে সকলেরই যেমন হয়, সেই বোধবুদ্ধি জাগার বয়স থেকেই। অর্থাৎ, নিবিড় ও মনোযোগী রসভোক্তা হিসেবে। হিসেব করে দেখলে, নিরবচ্ছিন্ন সাড়ে তিন দশকের ওপর তো হবেই সেটা। সময়টা কম নয়, প্রায় অর্ধেক জীবন বলা চলে। …
সত্যসন্ধ মিত্র

Posted in literature | Leave a comment

অলিম্পিক গেমস– মেডেলের মরীচিকা

অলিম্পিক গেমস– মেডেলের মরীচিকা – ১৩০ কোটির দেশ, তার আকাশছোঁয়া প্রত্যাশা ! কিন্তু ব্যালেন্স শিটের অন্যদিকে অপরিসীম হতাশা ! না ! এটা কোন কবিতার লাইন নয়। বরং ‘ক্যাচ লাইন’ – একটা স্বপ্নভঙ্গের ইতিহাসের, বর্তমানের, হয়ত বা ভবিষ্যতেরও। প্রথমেই বলি, এই লেখার অনুপ্রেরণা আমার এক অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বন্ধু। জুলাই-এর এক বৃষ্টিভেজা দুপুরে এক কফিশপে চলছিলো তার সঙ্গে জমাটি আড্ডা – বিশ্বচরাচরের …
অনির্বাণ দত্ত

Posted in Games | 4 Comments

ফরগেট-মি-নট

ফরগেট-মি-নট - ১৯৪৯। পড়ছি ঢাকা কলেজে। ইংরেজি ক্লাস। কবিতা পড়ান আজহার স্যার, ওরফে আজহার হোসেন। সর্বদা স্যুট-টাই পরে কলেজে আসেন। এক স্যুট পর পর দু’দিন পরেন না। স্যুটের ভাঁজ সর্বদা পরিপাটি। দীর্ঘ, ঈষৎ কোঁকড়ানো, চুল ব্যাকব্রাশ করা। হাঁটেন দ্রুত, দেহ সামনের দিকে বেশ কয়েক ডিগ্রী ঝুঁকিয়ে। পড়ান শেলী কীটস ওয়ার্ডসওয়ার্থ ।…
মাহফুজুর রহমান

Posted in Reflections | 7 Comments